1. bdculture2020@gmail.com : bdculture :
সময় এসেছে দলকে সত্যিকারে ঢেলে সাজানো - BD CULTURE
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩৫ অপরাহ্ন

সময় এসেছে দলকে সত্যিকারে ঢেলে সাজানো

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ
অনেক ছাত্রলীগের নেতা-নেত্রীরা রাজপথে দলের জন্য ঘাম ঝরিয়ে নিজের জীবন বাজি রেখে সংগ্রাম করেছেন। তাদের অনেকের জীবন কষ্টে অতিবাহিত হচ্ছে। তারা বেশি কিছু চায় না । ছাত্র রাজনীতি শেষে পরবর্তীতে মূল দলে অথবা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের  একটি পদ তারা আশা করে।
কিন্তু তারা বহু দিন যাবৎ পদহীন ভাবে হতাশায় ভুগছে।
একটি দলীয় পরিচয়ের আশায় তারা পার্টি অফিসে ধরনা ধরতে ধরতে অগনিত জুতার তলা ক্ষয় করেছেন। আর ছাত্র রাজনীতি করতে গিয়ে কত জোড়া জুতা যে হারিয়েছে তা হিসাবের বাইরে। পুলিশের লাঠিপেটা খেয়ে, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে গিয়ে । ছাত্রদল ,ছাত্রসমাজ, ছাত্রশিবির নেতাদের হিংস্র থাবা থেকে দলকে বাঁচাতে গিয়ে। শিবিরের হাত থেকে বেঁচে পালাতে গিয়ে।
সাবেক অনেক ছাত্রনেতাদের জীবন এখন শঙ্কিত অবস্থায়। দলীয় নির্দেশনা অনুযায়ী ছাত্রনেতাদের কাজ করতে হলে অনেক সময় পড়ার টেবিলে বসা যায় না।
সব সময় আন্দোলন সংগ্রাম করে দলের জন্য ভূমিকা রাখতে হয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে তারা তাদের নিজের জীবনের কথা ভুলে যায়। ভবিষ্যতের কথা ভুলে যায়। শুধুমাত্র দলকে ভালোবেসে এবং দলের নেতা বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে।
কই তারা তো ছাত্র রাজনীতি করার সময় কোন ব্যবসা-বাণিজ্য করে নাই।
সে তো ব্যবসা করে নিজের জীবন গুছিয়ে নেয় নাই।
কিন্তু আমরা কি দেখতে পাই ?
এই যে, হেলেনা জাহাঙ্গীর যে আমার প্রানের সংগঠন এর ছাত্রলীগ-যুবলীগের নামে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার দিচ্ছে ফেসবুক লাইভে এসে। আমরা নাকি তার বিরুদ্ধে কথা বলছি। আমরা তার বিরুদ্ধে কথা বলছি না ।আমরা কথা বলছি অন্যায়ের বিরুদ্ধে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর নাম বিক্রি করে যারা সুবিধা নেবে। যারা আওয়ামী লীগের ক্ষতি করবে। আমরা তাদের জীবন দিয়ে মোকাবেলা করবো ।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি অনুভুতির নাম ।
যারা এই দল করে তারা নিঃস্বার্থভাবে করে। তারা বঙ্গবন্ধু এবং শেখ হাসিনার আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করে।
ছাত্রলীগ, যুবলীগ , স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুব মহিলা লীগ,মহিলা আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর কোন নেতাকে বাদ দেয় নাই। সে নানান রকম মন্তব্য করছে। তিনি এও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া কাউকে গুনার টাইম নাই।
এরকম একজন অরাজনৈতিক অদক্ষ দুষ্টু মহিলাকে কে বা  কারা দলে সুযোগ দেয় ? সে কি কোন সময় দলের দুঃসময়ে দলের পাশে ছিল ? রাজপথে পথে তার শ্রম কি ? নেতাদের সাথে কয়েকটি স্থিরচিত্র ছাড়া তার আর কিইবা রাজনৈতিক যোগ্যতা আছে ?
হেলেনা মার্কা নেত্রীকে কারা পদ দেয় ?
এখন তা ভাবার সময় এসেছে বৈকি !
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কোন হাসির পাত্র নয়।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি অনুভূতির নাম। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি পদ পেতে হলে চুলচেরা বিশ্লেষণ করে তাকে পদ দিতে হবে। যাকে তাকে ধরে এনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ দলের কোন পদ দেয়া যাবে না।
হেলেনা জাহাঙ্গীর দলের একটি পদে ছিল ।
সে কি করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতা হয়?
সে সব কটি সহযোগী সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধাচরণ করছে। সে তো তাহলে লোভে আর লাভে স্বার্থের জন্য দল করতে এসেছিল। সে বারংবার ফেসবুক লাইভে এসে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। তার বিরুদ্ধে দলীয় সিদ্ধান্তের পরেও দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করার অপরাধে তাঁকে গ্রেফতার করা উচিত। অথবা যারা তাকে নেতা বানিয়েছিল, তাদের উচিত তার মুখ বন্ধ করা। যদি মুখ বন্ধ করতে নাই পারেন, তবে এমন বেহায়া নির্লজ্জ মহিলাকে কেন আমাদের প্রাণের আওয়ামী লীগের একটি সদস্যপদ করেছিলেন ?
সত্যিই সময় এসেছে দলকে সত্যিকারভাবে ঢেলে সাজানো। না হলে আমরা ধীরে ধীরে জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যতা হারাবো।
কাজী আনিসুর রহমান তৈমুর।
সদস্য ,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।
সাবেক ছাত্রনেতা।
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Categories

© All rights reserved © 2019 bdculture
                          কারিগরি সহায়তায় রাফিউল ইসলাম