1. bdculture2020@gmail.com : bdculture :
যশোরের বিখ্যাত মিষ্টি "জামতলার রসগোল্লা" - BD CULTURE
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৫৪ অপরাহ্ন

যশোরের বিখ্যাত মিষ্টি “জামতলার রসগোল্লা”

ইফফাত আরা ঐশী
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১
জামতলার রসগোল্লা
বাঙালির ঐতিহ্য যুগ যুগ ধরেই বহমান। পুরোনো ঐতিহ্য যুগের সাথে তাল মিলিয়ে হারিয়ে গেলেও মানুষ ভুলে যায় না। দেশের পুরোনো ঐতিহ্যকে নিয়েই আমাদের বাংলা সংস্কৃতির। আমাদের সংস্কৃতির প্রতি বিদেশীরাও মুগ্ধ। বিদেশীরা আমাদের সংস্কৃতি অনেক পছন্দ করেন। তেমনি আজ আমি যশোর জেলার ঐতিহ্যবাহী মিষ্টির কথা বলবো।
আমি ১৯৯৬ সাল থেকে যশোর জেলায় অবস্থান করছি। যশোরের মাটি থেকে আর কোথাও যেয়ে মায়ায় জড়াতে পারিনি। যশোর জেলার ঐতিহ্যবাহী জামতলার মিষ্টি অনেক জনপ্রিয়। জামতলা মিষ্টির আরেক নাম সাদেক রসগোল্লা বা জামতলার রসগোল্লা। সাদেক রসগোল্লা নামে খুব কম মানুষই পরিচিত। জামতলার মিষ্টি নামেই সবাই পরিচিত। দেশের গন্ডী পেরিয়ে নাম ডাক বিদেশেও আছে। ছয় দশকের বেশি সময় ধরেও নিজস্ব ঐতিহ্য বহন করে রেখেছে যশোরের বিখ্যাত জামতলার মিষ্টি। দেশের দূরবর্তী অঞ্চল থেকেও মিষ্টির খোঁজে চলে আসেন অন্য জেলার মানুষ।
বাঙালিরা বরাবরের মতোই  খাদ্য রসিক হিসেবেই পরিচিত। খাবারের পর মিষ্টান্ন ছাড়া এদের চলেই না। কী এমন স্বাদ আছে যে বাঙালি ছাড়াও বিদেশীদের কাছে এই মিষ্টির কদর অনেক বেশি।
প্রতিদিন এতো এতো মিষ্টি তৈরি হয়, যা দুপুরের আগেই শেষ হয়। যশোর শহর থেকে প্রায় ৩৮ কিলোমিটার দূরে যশোর- সাতক্ষীরা সড়কের ছোট একটা বাজারে এই মিষ্টি তৈরী হয় ১৯৫৫ সালে শেখ সাদেক নামক এক ব্যক্তি। তার নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে সাদেক রসগোল্লা। সাদেক রসগোল্লা নামেই পরর্বতীতে এর বিস্তর ছড়িয়ে পরে।
কুটুম বাড়ি গেলেও এই মিষ্টির প্রচলন সবচেয়ে বেশি। অনেকে আবার স্পঞ্জ মিষ্টি নামে চিনে থাকেন।
দেশী গরুর দুধ,  চিনি আর জ্বালানি কাঠ মিষ্টি তৈরীর মূল উপাদান। ১৯৫৫ থেকে ১৯৯৯ এর আগে পর্যন্ত সাদেক মিষ্টি তৈরী বাংলার ঐতিহ্য অক্ষুন্ন রাখেন। তাঁর মৃত্যুর পর সাদেকের ছেলেরা ব্যবসার হাল ধরেন।
ঢাকা শহরে এই মিষ্টির প্রচলন বেশি। ঢাকা থেকে যশোরে আসেন এই বিখ্যাত মিষ্টির জন্য। ৬০ বছরের বেশি সময় ধরে এই মিষ্টি নিজস্ব ইতিহাস- ঐতিহ্য ধরে রাখছে।
সময়ের ব্যবধানে সবকিছু পাল্টে গেলেও ঐতিহ্য সবসময় একরকম থাকবে। আমরা আমাদের ঐতিহ্য এইভাবেই ধরে রাখবো। যাতে পরর্বতী প্রজন্ম আমাদের ঐতিহ্যকে সবসময় মনে রাখে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Categories

© All rights reserved © 2019 bdculture
                          কারিগরি সহায়তায় রাফিউল ইসলাম