1. bdculture2020@gmail.com : bdculture :
মালদ্বীপের জীবন ও সংস্কৃতি  - BD CULTURE
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩২ অপরাহ্ন

মালদ্বীপের জীবন ও সংস্কৃতি 

মেফ্তাহুল জান্নাত
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১
পর্যটকদের স্বর্গভূমি মালদ্বীপ
আয়তনের হিসেবে পৃথিবীর সবথেকে ছোট দ্বীপ হচ্ছে মালদ্বীপ। ভৌগলিকভাবে এটি দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত। দ্বীপ ছোট ছোট ১২০০ টি দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত। দ্বীপগুলোর আয়তন ১৯৮ বর্গমাইল থেকে প্রায় ১১৫ বর্গমাইল।জলবায়ুর দিকথেকে বৈরি পরিবেশগত এই দ্বীপটি  বিশ্বজুড়ে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে বিলুপ্তির আশংকায় আছে।প্রায় ৬ কোটি বছর আগে দ্বীপগুলোর সৃষ্টি বলে বিজ্ঞানীরা ধারণা করে থাকেন।
ভারত মহাসাগরের আরব সাগর নামক অংশে অবস্থিত ১২০০ এর বেশি দ্বীপ মালদ্বীপ নামে পরিচিত।ভারত মহাসগরের ঐ অংশে হওয়া একাধিক আগ্নেয়গিরি উৎপত্তির ফলে এই স্থলভাগের ভিত্তি তৈরি হয় এবং সেই আগ্নেয়গিরি হতে সৃষ্ট লাভার উপর প্রবাল নামক একটি জীব বংশবিস্তার করে।এখানকার শামুক এতটাই জনপ্রিয় হযেছিলো যে তা বানিজ্যিক খাতে দারুন ভূমিকা পালন করেছিলো।ক্ষুদ্রাকৃতির সামুদ্রিক শামুক এশিয়া ও আফ্রিকা বিভিন্ন জনপদে ব্যবহৃত হত।
মালদ্বীপের বর্তমান জনসংখ্যা ৫ লাখেরও বেশি। মজার ব্যাপার হলো সেখানকার ১২০০ টি দ্বীপের মাঝে মাত্র ২০০ টি জনবসতি রয়েছে।আর মাত্র ২০ টি দ্বীপে ১০০০ বসতি।বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে জানিয়েছেন প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে সেখানে মানুষের আবির্ভাব হয়েছে।খ্রিষ্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে নাগাদ রাজ্যের শাসক তার অনুসারী দের নিয়ে উত্তর পূর্ব ভারতে পালিয়ে যান।তাদের হাতে এই জনপদ ও বানিজ্যিক শহর গড়ে ওঠে।সব স্থাপনা বাশ এবং কাঠ দিয়ে তৈরি হতো।তখন সেখানকার অধিবাসীরা সনাতন ধর্মের অনুসারী ছিলেন।
খ্রিষ্টপূর্ব তৃতীয় শকত নাগাদ মালদ্বীপে বৌদ্ধ ধর্মের বার্তা পৌঁছে যায়। সম্রাট অশোকের আমলে বৌদ্ধ ভিক্ষুক পাথরের তৈরি ৫৯ টি এমন স্থাপনা পাওয়া গিয়েছে।১১১৩ থেকে ১৯৫৩ সালের মধ্যে সেখানে ইসলাম ধর্মের আবির্ভাব হয়।দ্বাদশ শতকে বণিকদের সাথে বানিজ্যিক সম্পর্কের গুরুত্বে সেখানকার রাজা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।তখন সেখানে কড়ির খুব জনপ্রিয়তা এবং প্রচলন ছিলো।কড়ির ব্যবহার মধ্যযুগ পর্যন্ত অব্যাহত ছিলো।১৯৮৮ সালে সার্বোভৌমত্ব লাভের পর রাজতন্ত্র বাতিল করে প্রজাতন্ত্র হিসেবে স্বীকৃতি পায়।জীববিজ্ঞানী দের তথ্য অনুযায়ী মালদ্বীপ উপকূল সংলগ্ন সমুদ্রে ১০০০ প্রজাতির মাছ, ৪০০ প্রজাতির শামিক ও ঝিনুক, ২১ প্রজাতির তিমি ও ডলফিন রয়েছে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Categories

© All rights reserved © 2019 bdculture
                          কারিগরি সহায়তায় রাফিউল ইসলাম